আজ রবিবার, ২৩ Jul ২০১৭, ০৬:৪৫ পূর্বাহ্ন logo

সোমবার, ১৫ Jun ২০১৫, ০১:৪৭ অপরাহ্ন

কৌতুক অভিনয়শিল্পীর বড় সংকট - টেলি সামাদ

অভিনয়, গান ও ছবি আঁকা এই তিনটি জিনিসকে একসঙ্গে চালিয়ে গেছেন কিংবদন্তী কৌতুক অভিনয়শিল্পী টেলি সামাদ। সম্প্রতি অসুস্থ হলে তাকে দেখতে গিয়ে  কথা হল বর্তমান চলচ্চিত্র ও কৌতুক অভিনেতার সংকট নিয়ে। জানাচ্ছেন- ফয়েজ আহমেদ

দরজায় কড়া নাড়তেই জানা গেল টেলি সামাদ ঘুমোচ্ছেন। বুঝতে পারছি না অপেক্ষা করব, নাকি চলে আসব। অসুস্থ মানুষের ঘুম ভাঙ্গানোটা ঠিক হবে না। আমি যখন মনস্থ করলাম চলে আসব ঠিক তখনি তার সহধর্মিণী এসে বললেন, তিনি সজাগ হয়েছেন। ভেতরে প্রবেশ করে গুণি এই অভিনয়শিল্পীর পাশে গিয়ে বসলাম। বললাম, আপনার ঘুমের ব্যাঘাতের জন্য ক্ষমা চাচ্ছি। তিনি বললেন, এটা কোন ব্যাপার না। কত কারণে-অকারণেই তো মানুষের ঘুম ভাঙ্গে। আমি কিছু মনে করিনি। হাতের  ওপর ভর দিয়ে বসার চেষ্টা করলেন। তাকে সাহায্য করলাম। যে মানুষটির অভিনয় দেখে হাসতে হাসতে পেটে খিল ধরে যেত, এই তিনি কি সেই মানুষ! যাকে শোয়া থেকে একটু বসার জন্য আর  একজনের সাহায্য লাগে। জিজ্ঞেস করলাম এখন কেমন আছেন? বললেন, শরীরের অবস্থা আগের চেয়ে একটু ভালো। এখনও হাঁটতে পারিনা। হুইল চেয়ার ব্যবহার করতে হয়। তবে একটু একটু ভালোর দিকে যাচ্ছে। পায়ের ব্যাথাটা এখনও আছে। আশা করি আস্তে আস্তে কমে যাবে। আমার মনে হয় ব্যাথাটা  কমলে  হাঁটতে পারব। খাওয়া-দাওয়া খুব একটা করতে পারি না। অল্প পরিমাণে ফলমূল খাচ্ছি। আর সারাদিন শুয়ে থাকি। হাঁটতে ইচ্ছে করলেও পারি না। শুয়ে থাকতে আর ভালো লাগে না।
জানতে চাইলাম, বাংলা চলচ্চিত্রে কৌতুক অভিনয় শিল্পীদের কথা। বললেন, কৌতুক অভিনয়শিল্পীর বড় সংকট। তেমন কোন কৌতুক  অভিনেতা চোখে পড়েনা। হয়ত ভালো কোন কৌতুক অভিনেতা আসবে। কিন্তু কবে আসবে তা বোঝা যাচ্ছে না। তেমন কোন লক্ষণও দেখতে পাইনা। টেলি সামাদকে ছাড়িয়ে যাচ্ছে এমন  একজন অভিনেতা দেখতে পেল খুব ভালো লাগত। মানুষকে বিনোদিত করা খুব কঠিন একটা কাজ। হয়ত এখনকার অভিনেতারা সেই কঠিন কাজটি করতে চাচ্ছে না। অভিনয়ের মাধ্যমে মানুষের মুখে হাসি ফুটানোর কাজটা বড় কঠিন। জানতে চাইলাম একই  সঙ্গে গান, ছবি আঁকা এবং অভিনয় কিভাবে করেন? তিনি জানান, ছোট বেলায় তিনটি জিনিসের প্রতি নেশা ছিল। চারুকলা, অভিনয় আর গান। আমি তিনটাকেই সমান তালে চালিয়ে গেছি। আমি চারুকলার ছাত্র ছিলাম। প্রচুর ছবি আঁকি। গত ছয় মাস আমি আমেরিকায় ছিলাম। সেখানেও অনেক ছবি এঁকেছি, অনেক প্রশংসা পেয়েছি। যতদিন বেঁচে থাকব এই তিনটা জিনিসকে চালিয়ে যাব। কেউ কেউ বলে, যে কোন একদিকে যাও; আমি বলি না। তিনদিকেই যাওয়া যায়। যদি কাজের প্রতি প্রচন্ড ভালোবাসা আর শ্রদ্ধাবোধ থাকে। তাহলে  একই সঙ্গে অনেকগুলো কাজ  করা কোন ব্যাপার  না।

হ্যা, টেলি সামাদই তার উদাহরণ। অসাধারণ গান আর তার ছবি আঁকা যে কাউকে মুগ্ধ করবে। অভিনয়ের তো তুলনাই হয় না। হয়ত বাংলা চলচ্চিত্রে কৌতুক অভিনেতা আসবে। কিন্তু তা টেলি সামাদকে ছাড়িয়ে যেতে পারবে কিনা সেটাই প্রশ্ন।