আজ সোমবার, ২৩ অক্টোবর ২০১৭, ১০:৩১ পূর্বাহ্ন logo

শুক্রবার, ২৩ অক্টোবর ২০১৫, ০৩:২১ পূর্বাহ্ন

প্যারিসে চলছে শারদীয় দুর্গোৎসব

নিউজ ডেস্ক

জনতার নিউজ২৪ ডটকম :

শিশিরে শিশিরে শারদ আকাশে ভোরের আগমনী-মা দুর্গার আগমন এখন আর বাংলাতে সীমাবদ্ধ নেই। মায়ের আগমন সুদূর বাংলা ছাড়িয়ে এখন  সম্রাট নেপোলিয়নের শহর প্যারিসেও বিস্তৃত!
 
বাংলাদেশের মতো প্যারিসে হয়তো শারদীয় দুর্গোৎসবের পূজা মণ্ডপে মাটির প্রতিমা স্থাপন করে পূজা অর্চনা হয় না কিংবা পূজোয় সরকারি ছুটি ও বোনাস পাওয়া যায় না। তারপরও কি প্রবাসীদের মধ্যে পূজার আনুষ্ঠানিকতা কিংবা নান্দনিকতা, উৎসাহ, উদ্দীপনার কমতি আছে? মোটেই না। 

বাংলাদেশের মতো বিশাল আকারে না হলেও সাড়ে তিন হাজার ফ্রান্স প্রবাসী হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজন অত্যন্ত জাকজমকভাবে উদযাপন করছে দুর্গাপূজা। দেবী দুর্গার চক্ষুদান, দেবীকে আসন, বস্ত্র, নৈবেদ্য, স্নান, পুষ্পমাল্য, চন্দন, ধুপ ও দীপ দিয়ে পূজা, সন্ধ্যায় পূজা মণ্ডপগুলোতে ভক্তিমূলক গান,  আরতিসহ নানা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এই উদযাপনের মাধ্যমেই তারা চর্চা করে নিজেদের ঐতিহ্য, কৃষ্টি ও সভ্যতার। নিজের শেকড়কে পরিচিত করতে চায় প্রবাসে বেড়ে ওঠা প্রজন্মদের।
 
২০০৩ সালে বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদের ব্যানারে প্যারিসে বাংলাদেশি হিন্দু সম্প্রদায়ের সর্ব প্রথম দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হয়। বাড়তে বাড়তে ২০১৫ সালে এসে পূজা মণ্ডপের সংখ্যা দাঁড়ায় পাঁচটিতে। বাংলাদেশ পূজা উদাযাপন পরিষদ ফ্রান্স, বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ, প্যারিস, সনাতন ধর্ম উন্নয়ন পরিষদ ফ্রান্স, সার্বজনীন পূজা উদযাপন পরিষদের উদ্যোগে পাঁচদিন ব্যাপী অত্যন্ত জাঁক জমকভাবে পূজা উদযাপন করা হচ্ছে প্যারিসে।

বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ ফ্রান্সের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ও প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক যথাক্রমে রজত রায় ও সুভ্রত ভট্টচার্য শুভ বলেন, ‘প্রায় সাড়ে তিন হাজার প্রবাসী হিন্দু সম্প্রদায়ের পাশাপাশি প্রবাসী বাঙালিরাও ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে বাঙালি সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব দুর্গাপূজা খুব উৎসাহ উদ্দীপনার সাথে পালন করছে। এতে আমাদের মধ্যে সম্প্রীতির বন্ধন আরো দৃঢ় হচ্ছে যা আমাদের প্রজন্মদের মধ্যে দেশাত্ববোধ জাগ্রত করবে’।

প্যারিসের পাঁচটি পূজামণ্ডপে গিয়ে হিন্দু সম্প্রদায়ের সাথে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন, ফ্রান্সে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত এম শহীদুল ইসলাম, ফ্রান্স আওয়ামী লীগের সভাপতি বেনজির আহমেদ সেলিম, ফ্রান্স বাংলাদেশ চেম্বার ও কর্মাসের সভাপতি কাজী এনায়েত উল্লাহ ইনু, ফ্রান্স বাংলা প্রেসক্লাবের নেতৃবৃন্দসহ আরো অনেকে।