আজ শনিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ০৪:২৯ পূর্বাহ্ন logo

মঙ্গলবার, ২৪ নভেম্বর ২০১৫, ১২:৪৯ অপরাহ্ন

কুয়াকাটার লোনা জলে গঙ্গা স্নান

উওম কুমার হাওলাদার

জনতার নিউজ২৪ ডটকম

ঢাকাঃ বুধবার পূর্নিমা তিঁথীতে সকালে সূর্যদয়ের সাথে সাথে লাখো সনাতন ধর্মালম্বী নারী-পুরুষ কুয়াকাটায় সমুদ্রের লোনা জলে পূর্ণ্য স্নান করবেন। সাগরের নীল জলে ধুয়ে মুছে যাবে জাগতিক পাপ।

এ আশায় গতকাল মঙ্গলবার সকাল থেকে সাধু, সন্যাষী ও দেশ-বিদেশী দর্শনার্থীসহ পূর্ণ্যার্থীরা কুয়াকাটার সৈকতে জমায়েত হয়েছে। এ উৎসবকে ঘিরে কলাপাড়া ও পর্যটন কেন্দ্র কুয়াকাটাকে নতুন রুপে সাজানো হয়েছে। রাস মেলা ও গঙ্গাস্নান উৎসব হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের হলেও এটি এখন সার্বজনীন উৎসবে রূপ নিয়েছে।

পুরো সৈকত জুড়ে এখন পূর্ণ্যার্থী ও দর্শনার্থীদের পদচারনায় মুখরিত হয়ে উঠেছে। এদিকে জেলা ও উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। এর মধ্য দিয়ে শ্রী শ্রী মদন মোহন সেবাশ্রম প্রাঙ্গনে ছয় দিন ব্যাপি দেশের সর্ববৃহৎ রাস মেলা উৎসব শুরু হবে বলে আয়োজকরা জানিয়েছেন।

উপজেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, এ বছর রাস মেলা ও গঙ্গা স্নানে আগত পূর্ণ্যার্থী ও দর্শনার্থীদের নিরাপত্তা সেবা প্রদানের জন্য র‌্যাব, পুলিশের পাশাপাশি রিজার্ভ ফোর্স কুয়াকাটার সৈকতে মোতায়ন রয়েছে। সুপেয় পানি, চিকিৎসা টিম, নিরাচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ ব্যবস্থা নিশ্চিত করা হয়েছে।

কলাপাড়া রাস মেলা উদ্যাপন কমিটির আহবায়ক হীরা হাওলাদার স্বপন জানান, কুয়াকাটায় পূর্ণ্য স্নান শেষে পূর্ণ্যার্থীরা কলাপাড়া পৌর শহরের শ্রী শ্রী মদনমোহন সেবাশ্রম প্রাঙ্গনে এসে রাঁধা কৃষ্ণের যুগল প্রতিমা দর্শন করবেন। 

মঙ্গলবার রাত ১২টা ১ মিনিটে ১৭ জোড়া যুগল প্রতিমা প্রতিষ্ঠাসহ অধিবাস অনুষ্ঠান করা হয়েছে। দীর্ঘ ৫ দিনের রাস মেলায় দুর-দূরান্ত থেকে আসা দোকানীরা বিভিন্ন মালের পশরা সাজিয়ে বসেছে। এ বছর রাস মেলায় লক্ষাধিক লোকের সমাগম হবে বলে তিনি জানান।

কুয়াকাটা হোটেল মোটেল ওনার্স এ্যাসোসিয়েশন’র সাধারন সম্পাদক মোতালেব শরীফ বলেন, অধিকাংশ হোটেল মোটেলের সিট রাস উপলক্ষে বুকিং হয়ে গেছে।

কুয়াকাটা ট্যুরিষ্ট পুলিশ জোনের সিনিয়ার সহকারী পুলিশ সুপার মীর ফসিউর রহমান জানান, গঙ্গাস্নান ও রাস মেলায় আগত পূর্ণ্যার্থীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে বিভিন্ন পয়েন্টে পুলিশের পাশাপাশি ট্যুরিষ্ট পুলিশের টহল অব্যাহত থাকবে।

কলাপাড়া থানার ওসি (তদন্ত) মো.মনিরুজ্জামান জানান, জেলা পুলিশের সমন্বয় নৌ-পুলিশ, থানা পুলিশ, ট্যুরিষ্ট পুলিশের নিরবিচ্ছিন্ন টহল থাকবে। এছাড়া র‌্যাবের একটি টিম সৈকতে থাকবে বলে তিনি জানান।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো.জাহাঙ্গির হোসেন জানান,মেলায় আগত পূর্ণ্যার্থী ও দর্শনার্থীদের নিরাপত্তার জন্য আমরা সকল ব্যবস্থা নিয়েছি।