আজ মঙ্গলবার, ২৪ অক্টোবর ২০১৭, ০১:৩০ অপরাহ্ন logo

বৃহস্পতিবার, ২৫ মে ২০১৭, ০৮:১৮ অপরাহ্ন

ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলে 'সেশন ফি' নয়: হাইকোর্ট

নিউজডেস্ক

 

জনতার নিউজ২৪ ডটকম :

ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলে পুনঃভর্তি ফি ও সেশনচার্জ  আদায় অবৈধ বলে রায় দিয়েছেন হাইকোর্ট।
এছাড়াও ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলে দেশীয় সংস্কৃতিসহ বাংলাকে গুরুত্ব প্রদান এবং স্কুল পরিচালনায় ম্যানেজিং কমিটি গঠন, শিক্ষক নিয়োগে পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ এবং দেশের ইতিহাস সম্পর্কে পাঠদানসহ বেশ কিছু নির্দেশনা দিয়েছেন আদালত।


বৃহস্পতিবার বিচারপতি শেখ হাসান আরিফ ও বিচারপতি মো. বদরুজ্জামানের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

এক রিট আবেদনের প্রেক্ষিতে জারি করা রুলের চূড়ান্ত শুনানি শেষে এ আদেশ দেয়া হয়।

গত ৫ এপ্রিল শুনানি শেষে মামলাটি রায় ঘোষণার জন্য অপেক্ষমাণ রাখা হয়েছিল।

রায়ের উল্লেখযোগ্য নির্দেশনার মধ্যে রয়েছে, এক শ্রেণি থেকে অন্য শ্রেণিতে উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে ভর্তি ফি, সেশন ফি বা একাডেমিক ফি’র নামে কোনো ‘ফি’ আদায় করা যাবে না।

ভর্তি ফি, টিউশন ফি নির্ধারণ করবে ম্যানেজিং কমিটি। তাতে অভিভাবক প্রতিনিধিদের মতামত প্রাধান্য পাবে। ওয়েবসাইটে তা প্রকাশ করতে হবে।

আর বেসরকারি স্কুল নিবন্ধন অধ্যাদেশ ১৯৬২ অনুসারে অভিভাবকসহ শিক্ষক প্রতিনিধিদের নিয়ে ম্যানেজিং কমিটি গঠন করতে হবে।

শিক্ষক ও কর্মী নিয়োগের ক্ষেত্রে পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি দিয়ে যাচাই-বাছাই করে যোগ্য ও মেধাবীদের নিয়োগ করতে হবে। এতে মালিকপক্ষের কোনো প্রাধান্য থাকবে না।

প্রথম শ্রেণি থেকে অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত আরও ভালোভাবে শিক্ষার্থীদের বাংলা ভাষার চর্চা করাতে হবে। যাতে তারা শুদ্ধভাবে বাংলা লিখতে, পড়তে ও বলতে পারে।

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, কাজী নজরুল ইসলামসহ প্রখ্যাত বাঙালি কবি-সাহিত্যিকদের রচনাবলীর সঙ্গে ইংরেজি মাধ্যমের শিক্ষার্থীদের পরিচয় ঘটাতে হবে। জাতিরজনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, ভাষা শহীদ এবং মুক্তিযোদ্ধাদের গৌরবগাথা ও স্বাধীনতার গৌরবোজ্জ্বল ইতিহাস শিক্ষার্থীদের জানাতে হবে।

সব জাতীয় দিবস যথাযোগ্য মর্যাদায় এবং দেশীয় কৃষ্টি-সংস্কৃতির আবহে পালন করতে হবে।

রায় ঘোষণার সময় আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে উপস্থিত ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল সরদার রাশেদ জাহাঙ্গীর।

রিট আবেদনের পক্ষে ছিলেন ব্যারিস্টার বদরুদ্দোজা বাদল, অনিক আর হক ও জে আর খান রবিন।

আইনজীবী বদরুদ্দোজা বাদল জানান, রায় পাওয়ার এক মাসের মধ্যে নির্দেশনাগুলো নিয়ে পরিপত্র জারি করে তা সব ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলে পাঠাতে শিক্ষা মন্ত্রণালয়কে নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

এছাড়া নির্দেশনাগুলো বাস্তবায়ন করা হয়েছে কিনা- তা প্রতি তিনমাস পরপর প্রতিবেদন আকারে আদালতকে জানাতে বলা হয়েছে বলে জানান এ আইনজীবী।

উল্লেখ্য,   ২০১৪ সালের ২৩ এপ্রিল হাইকোর্ট ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলে পুনঃভর্তি ফি ও সেশনচার্জ আদায়ের ওপর তিন মাসের নিষেধাজ্ঞা জারি করেছিলেন।

জনস্বার্থে করা এক রিট আবেদনের প্রাথমিক শুনানি শেষে বিচারপতি মির্জা হোসেইন হায়দার ও বিচারপতি মুহাম্মদ খুরশীদ আলম সরকারের বেঞ্চ অন্তর্বর্তীকালীন ওই আদেশ দেন।

শিক্ষা সচিব, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা অধিদফতর এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালককে এ আদেশ বাস্তবায়ন করতে বলা হয়েছিল।

২০১৩ সালের ১৬ সেপ্টেম্বর একটি জাতীয় দৈনিকে ফ্রিস্টাইলে চলছে ইংলিশ মিডিয়াম স্কুল শিরোনামে একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়।

ওই প্রতিবেদনের ভিত্তিতে ২০১৪ সালের ২০ এপ্রিল জনস্বার্থে হাইকোর্টে রিট আবেদনটি করেন ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলের এক শিক্ষার্থীর অভিভাবক জাবেদ ফারুক।

ওই আবেদনের ওপর শুনানি শেষে রুলসহ আদেশ জারি করেছিলেন আদালত।

রুলে ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলে মাসিক বেতন, পুনঃভর্তি ফি বা সেশনচার্জ আদায়ের বিষয়ে নীতিমালা তৈরির নির্দেশ কেন দেয়া হবে না এবং এসব বিষয় তদারকি করতে একটি মনিটরিং সেল গঠনের নির্দেশ কেন দেয়া হবে না তা জানাতে বলা হয়।

ওই রুলের চূড়ান্ত শুনানি শেষে বৃহস্পতিবার রায় দিলেন হাইকোর্ট।