আজ রবিবার, ২৫ Jun ২০১৭, ১১:৩০ অপরাহ্ন logo

রবিবার, ২১ মে ২০১৭, ০১:১৮ পূর্বাহ্ন

ঝাড়ু নিয়ে নেমে পড়লেন সিভিল সার্জন, মেয়র

নিউজডেস্ক

 

জনতার নিউজ২৪ ডটকম :

হাতে ঝাড়ু নিয়ে নেমে পড়েছেন পরিচ্ছন্নতার কাজে। না, তাঁরা সাধারণ কোনো পরিচ্ছন্নতাকর্মী নন। একজন সিভিল সার্জন, অপরজন পৌরসভার মেয়র।

চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে গতকাল শনিবার এ দুজনকে এমন অবস্থায় দেখে অবাক হয়েছেন অনেকে। তাঁরা এদিন হাসপাতাল পরিচ্ছন্নতা অভিযানে অংশ নেন। সঙ্গে ছিলেন পৌরসভার সব কাউন্সিলরের পাশাপাশি ছাত্রলীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতা-কর্মীরাও।

 সদর হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা (আরএমও) রাজিবুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, চিকিৎসা ব্যবস্থাপনাকে রোগীবান্ধব করতে সরকারি উদ্যোগে কমিউনিটি সাপোর্ট কমিটি গঠন করা হয়েছে। এ কমিটির উদ্যোগেই গতকালের পরিচ্ছন্নতা অভিযান চালানো হয়। কমিটির চেয়ারপারসন হিসেবে আছেন চুয়াডাঙ্গা পৌরসভার মেয়র ওবায়দুর রহমান চৌধুরী।

আয়োজক ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, পৌর মেয়রের আহ্বানে সাড়া দিয়ে পৌরসভার সব কাউন্সিলর এ পরিচ্ছন্নতা অভিযানে অংশ নেন। পাশাপাশি ছাত্রলীগের বিভিন্ন পর্যায়ের অর্ধশত নেতা-কর্মীও এসেছিলেন। তাঁরা সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত স্বেচ্ছাশ্রম দিয়ে চিরচেনা নোংরা ও দুর্গন্ধময় পরিবেশ থেকে হাসপাতালকে মুক্ত করেন।

ওবায়দুর রহমান চৌধুরী বলেন, হাসপাতালের স্বাস্থ্যকর পরিবেশ ফিরিয়ে আনতে সাপোর্ট কমিটির উদ্যোগে গত ২৭ এপ্রিল থেকে ধারাবাহিক কার্যক্রম চলে আসছে। তিনি আরও বলেন, ‘শুরুর দিনে ঘোষণা দিয়েছিলাম, প্রতিদিনই হাসপাতালের দৈনন্দিন চাহিদা অনুযায়ী কিছু পরিচ্ছন্নতাকর্মী দেওয়া হবে। সেটা দেওয়া হচ্ছে। এ ছাড়া প্রতি মাসে একদিন ‘পরিচ্ছন্ন হাসপাতাল, পরিচ্ছন্ন দিন’ হিসেবে পালনের সিদ্ধান্ত হয়। সে অনুযায়ী আজ (গতকাল) সদর হাসপাতালের নিচতলায় পুরুষ ও মহিলা মেডিসিন ওয়ার্ডের প্রতিটি কক্ষ পরিষ্কার করা হয়েছে। আগামী মাসে দোতলায় পুরুষ ও মহিলা সার্জারি ওয়ার্ডের পুরোটাই পরিষ্কার করা হবে।’

এদিকে পরিচ্ছন্নতা অভিযানে সহযোগিতা দেওয়ায় মেয়র ও সিভিল সার্জন দুজনই ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন। সিভিল সার্জন রওশন আরা বলেন, ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা যে সেবার মানসিকতা নিয়ে এগিয়ে এসেছেন, তা অনুকরণীয় হয়ে থাকবে।

চুয়াডাঙ্গা পৌর ছাত্রলীগের যুগ্ম সম্পাদক মাফিজুর রহমান বলেন, ছাত্ররাজনীতি নিয়ে নানা রকম সমালোচনা আছে। কিন্তু চুয়াডাঙ্গায় ছাত্রলীগের রাজনীতিকে তাঁরা নতুন মাত্রায় নিয়ে যেতে চান। সেই চিন্তা থেকেই তাঁরা এ ধরনের সেবামূলক কাজে অংশ নিয়েছেন।

গতকালের পরিচ্ছন্নতা অভিযান স্বচক্ষে দেখেন জেলা প্রশাসক জিয়াউদ্দীন আহমেদও। তিনি বেলা ১১টার দিকে সরেজমিনে পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম পরিদর্শন করেন। পরে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, সদর হাসপাতালে পরিচ্ছন্ন পরিবেশ ফিরিয়ে আনার এই উদ্যোগ প্রশংসনীয়।