আজ বুধবার, ২৩ অগাস্ট ২০১৭, ০৫:৫৯ অপরাহ্ন logo

বুধবার, ০৭ Jun ২০১৭, ০২:১৪ অপরাহ্ন

কাতারের পাশে থাকার ঘোষণা এরদোগানের

নিউজডেস্ক

 

জনতার নিউজ২৪ ডটকম :

কাতারের সঙ্গে সৌদি আরব ও তার মিত্রদের সম্পর্ক ছিন্নের মধ্যে দিয়ে মধ্যপ্রাচ্যে নতুন অস্থিতিশীলতার সৃষ্টি হয়েছে।
এই অবস্থায় কাতারের প্রতি নিজেদের পূর্ণ সমর্থন জানিয়েছে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোগান। খবর আল জাজিরার।


মঙ্গলবার আঙ্কারাতে দেয়া এক ভাষণে এরদোগান বলেন, কাতারসহ আরব রাষ্ট্রগুলোর সঙ্গে আমাদের সুসম্পর্ক রয়েছে। তাই আমরা বলছি কাতারের ওপর নিষেধাজ্ঞা কোনোভাবেই ভালো কোনো সিদ্ধান্ত নয়।

এরদোগান ঘোষণা দেন, আমরা কাতারের পাশে আছি। তাদের সঙ্গে সুসম্পর্ক বজায় থাকবে। যেমন সুসম্পর্ক রয়েছে যারা কঠিন সময়ে তুরস্কের পাশে ছিল। এসময় তিনি 'কঠিন সময়' বলে সাম্প্রতিক সময়ের সামরিক ব্যর্থ অভ্যুত্থানের বিষয়ে ইঙ্গিত করেন।

এদিকে কাতারের সঙ্গে ভালো সম্পর্ক থাকলেও অন্যান্য উপসাগরীয় রাষ্ট্রগুলোর সঙ্গেও ভালো সম্পর্ক রয়েছে তুরস্কের। বিশেষ করে সৌদি আরবের সঙ্গে তুরস্কের সম্পর্ক অনেক ভালো।

এরদোগান তার বক্তব্যে রিয়াদকে নিয়ে বিশেষ কোনো সমালোচনা না করলেও উপসাগরীয় সহযোগিতা পরিষদের সদস্য দেশসমূহকে আলোচনার মাধ্যমে কাতার সমস্যা সমাধানের আহ্বান জানান।

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট বলেন, কাতারকে একঘরে বা কোনঠাসা করার চেষ্টা কোনো সমস্যার সমাধান হতে পারে না।

এক্ষেত্রে খুব বাজে অবস্থার মধ্যেও দোহা যেভাবে ঠাণ্ডা মাথায় ও গঠনমূলক পদ্ধতিতে পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছে তা প্রশংসার দাবিদার বলে উল্লেখ করেন এরদোগান।

সোমবার সৌদি আরব ও তার তিন মিত্র কাতারের বিরুদ্ধে জঙ্গি সংগঠনকে সমর্থন ও সহযোগিতার অভিযোগ তুলে। পাশাপাশি কাতারের কারণে মধ্যপ্রাচ্যের শান্তি ও স্থিতিশীলতা নষ্ট হচ্ছে বলেও অভিযোগ করে সম্পর্ক ছিন্ন করে দেশগুলো।

প্রথম দফায় সৌদি আরব, মিশর, সংযুক্ত আরব আমিরাত ও বাহরাইন সম্পর্ক ছিন্ন করলেও পরের দফায় লিবিয়া এবং ইয়েমেনও কাতারের সঙ্গে সম্পর্কচ্ছেদ করে।

কাতারের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করা দেশগুলোর নাগরিকদের কাতারে যাওয়া, সেখানে বসবাস করা বা কাতার হয়ে অন্য কোন দেশে যাওয়া নিষিদ্ধ করা হয়েছে। এসব দেশের নাগরিকদের দুই সপ্তাহের মধ্যে কাতার ছাড়তে বলা হয়েছে। একই সঙ্গে সৌদি আরব, আরব আমিরাত এবং বাহরাইনে বসবাসরত কাতারিদেরও একই সময়ের মধ্যে এসব দেশ ছেড়ে যেতে বলা হয়েছে।