আজ শনিবার, ১৮ নভেম্বর ২০১৭, ০৬:৪১ পূর্বাহ্ন logo

বৃহস্পতিবার, ০৬ Jul ২০১৭, ০৯:৩৫ অপরাহ্ন

আরো কঠোর চীন, মোদি-জিনপিং বৈঠক বাতিল

আন্তর্জাতিক ডেস্ক,

জনতার নিউজ২৪ ডটকম :সীমান্ত উত্তেজনা নিয়ে আরো কঠোরতা দেখাল চীন।

শুক্রবার জার্মানির হাম্বুর্গে জি-২০ শীর্ষ সম্মেলনে ভাতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও চীনা প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের মধ্যকার পার্শ্ববৈঠক বাতিল করল চীন।বৃহস্পতিবার চীন জানিয়ে দিয়েছে, মোদি ও জিনপিংয়ের দ্বিপক্ষীয় বৈঠকের জন্য ‘পরিস্থিতি এখন সঠিক নয়’।

ভারত ও চীনের মধ্যকার সিকিম সীমান্তের দুপাশে অবস্থান নিয়েছে দুই দেশের সেনারা। যুদ্ধোন্মুখ অবস্থান বিরাজ করছে সেখানে। ভারতের অভিযোগ, সীমান্তের সিকিম সেক্টরের খুব কাছে সড়ক নির্মাণ করছে চীন, যা ওই অঞ্চলে ভারতের যোগাযোগ ব্যবস্থায় বিঘ্ন ঘটাবে এবং ওই এলাকাটি ভুটানের। কিন্তু চীনের দাবি, ১৮৯০ সালে ব্রিটেন ও চীনের মধ্যে সীমান্ত ফয়সালা অনুযায়ী তাদের সার্বভৌম এলাকাতেই তারা সড়ক নির্মাণ করছে। তারা আরো অভিযোগ করে, এ ইস্যুতে ভারত সরকার তার জনগণকে ভুল পথে পরিচালিত করছে।

টানা ২১ দিন সিকিম সীমান্তের দুই পাশে অবস্থান করছে ভারতীয় ও চীনা সেনারা। দুই দেশের মধ্যে ‍উত্তপ্ত বাক্য ছোঁড়াছুড়ি চলছে। ১৯৬২ সালে ভারত ও চীনের যুদ্ধের ইতিহাস টেনে হুমকি ও পাল্টা হুমকি দিচ্ছে চীন ও ভারতের নেতারা।

এ অবস্থায় বৃহস্পতিবার চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়ে দিয়েছে, ‘প্রেসিডেন্ট শি ও প্রধানমন্ত্রী মোদির মধ্যে দ্বিপক্ষীয় বৈঠকের উপযুক্ত আবহ নেই এখন।’ অবশ্য এর আগে দুই দেশের গণমাধ্যমে বলা হয়েছিল, হাম্বুর্গে মোদি-জিনপিংয়ের বৈঠক হতে পারে।

ভারত, ভুটান ও চীনের তিব্বতের সংযোগস্থল সিকিমের দোকালাম। এখানে চীন একটি সড়ক নির্মাণের কাজে হাত দেওয়ার পর এর বিরোধিতা করে সীমান্তে সেনা মোতায়েন করে ভারত। ভুটানি নাম দোকালামের ভারতীয় নাম দোকা লা। চীনের দাবি, দোকালাম বা দোকা লা তাদের ডংলাং অঞ্চলের অন্তর্ভুক্ত ও তাদের সার্বভৌম অঞ্চলের অংশ।

বুধবার চীনা বিশ্লেষকের উদ্ধুতি দিয়ে দেশটির রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যমে বলা হয়েছিল, ‘ভারত যেহেতু ঐতিহাসিক পাঠ থেকে শিক্ষা নিচ্ছে না, ফলে সিকিমের অচলাবস্থার অবসানে চীন ‘‘সামরিক উপায়’’ অবলম্বন করতে পারে।’

তবে বুধবার ভারতের প্রতিরক্ষা প্রতিমন্ত্রী সুভাস ভাম্রে সাংবাদিকদের বলেন, ‘এই ইস্যু বা উত্তেজনা কূটনৈতিক পর্যায়ে সমাধান করা উচিত… এটি কূটনৈতিকভাবেই সমাধান হতে পারে, আমরা এমনটিই চাই।’