হেফাজতি সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে কঠোর না হলে দেশকে খেসারত দিতে হবে: জাসদ

হেফাজতি সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে কঠোর না হলে দেশকে খেসারত দিতে হবে: জাসদ

‘জঙ্গীবাদী সন্ত্রাসবাদীদের বিরুদ্ধে সরকার যেভাবে সুস্পষ্ট কঠোর অবস্থান গ্রহণ করেছিল, সেভাবেই হেফাজতে ইসলামের সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে সরকার সুস্পষ্ট ও কঠোর অবস্থান না নেওয়া হলে দেশ-রাষ্ট্র-জনগণকে অনেক খেসারত দিতে হবে।’

জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদের সভাপতি হাসানুল হক ইনু এমপি ও সাধারণ সম্পাদক শিরীন আখতার এমপি আজ বুধবার (৩১ মার্চ) এক যুক্ত বিবৃতিতে এসব কথা বলেছেন।

কোনো ছাড় না দিয়ে অবিলম্বে হেফাজতি সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট মামলা দায়ের, গ্রেপ্তার, বিচার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেছেন তাঁরা।

বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘জঙ্গীবাদী সন্ত্রাসবাদীদের বিরুদ্ধে সরকার যেভাবে সুস্পষ্ট কঠোর অবস্থান গ্রহণ করেছিল ঠিক সেভাবেই হেফাজতি সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে সরকার সুস্পষ্ট ও কঠোর অবস্থান না নেওয়া হলে দেশ-রাষ্ট্র-জনগণকে অনেক খেসারত দিতে হবে।’

নেতৃবৃন্দ বলেন, ‘২০১৩ সালের ৫ মে শাপলা চত্বরে হেফাজতের তাণ্ডবের পর হেফাজতি সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা না নিয়ে তাদের সঙ্গে লেনদেনের আত্মঘাতী কৌশল গ্রহণ করায় আজ সংগঠনটির এত বাড় বেড়েছে। ব্রাহ্মণবাড়িয়া, নারায়ণগঞ্জ, হাটহাজারিতে এত বড় তাণ্ডব চালানোর স্পর্ধা দেখাতে পেরেছে।’ তাঁরা বলেন, ‘হেফাজত বাংলাদেশ রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে যুদ্ধ ঘোষণা করে প্রকাশ্যে সন্ত্রাসী তাণ্ডবের ঘোষণা দিয়েছে।’

বিবৃতিতে আরো বলা হয়েছে, ‘ব্রাহ্মণবাড়িয়া, হাটহাজারী, ঢাকায় হেফাজতি নেতারা প্রকাশ্যে সামনে থেকে সন্ত্রাসী তাণ্ডব চালিয়েছে। তারপরও হেফাজতি সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট মামলা গ্রহণ না করে  তাঁদের সঙ্গে লেনদেন করার কৌশল হবে দেশ ও রাষ্ট্রের জন্য আত্মঘাতী।’

নেতৃবৃন্দ বলেন, ‘হেফাজতকে ছাড় দিয়ে, লেনদেন করে কোনো লাভ নেই। কারণ হেফাজত রাজনৈতিক আদর্শিকভাবে বাংলা, বাঙালি, বাংলাদেশ, স্বাধীনতা, বঙ্গবন্ধু ও সংবিধানবিরোধী শক্তি। হেফাজত রাজনৈতিক বংশধারা ও বংশগতিতেই জামাত-বিএনপির গোত্রভুক্ত। তারা সুযোগ ও সুবিধা নেবে কিন্তু দুধ-কলা দিয়ে পোষা সাপের মতোই সুযোগ পেলেই ছোবল হানবে।’

Top 8 রাজধানী